বুধবার , ২১ অক্টোবর ২০২০
সর্বশেষ সংবাদ

আইসিবির বিনিয়োগ ক্ষমতা বাড়িয়ে দিল বিএস‌ইসি।

শেয়ারবাজার প্রতিবেদক : ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) প্রভিশন রাখার আরও দুই বছর সময় পেল। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) আইসিবিকে এই সুবিধা দিতে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আইসিবি অনাদায়ি ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন রাখতে সময় পাবে ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এর ফলে রাষ্ট্রায়ত্ব বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠানটির বিনিয়োগ সক্ষমতা আরও বৃদ্ধি পাবে।
বুধবার (১৪ অক্টোবর) পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের-বিএসইসি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ঠ সুত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, প্রভিশন রাখতে আরও দুই বছর সময় পাওয়ায় লোকসান হিসাবে কিছুটা সুবিধা পাবে আইসিবি। এর ফলে আইসিবি আরও শক্তিশালী হবে এবং পুঁজিবাজারে ইতিবাচক ভুমিকা রাখতে পারবে রাষ্ট্রায়ত্ব এ প্রতিষ্ঠানটি। একই সঙ্গে এর ফলে আইসিবির মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোতে ডিভিডেন্ড দিতে পারবে। যা পুঁজিবাজারের জন্য ইতিবাচক বার্তা দিবে বলে মনে করছে পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা।
এর আগে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রভিশন রাখার সময় বাড়ানো হয়। পুঁজিবাজারে বড় দরপতনের কারণে মার্চেন্ট ব্যাংকের প্রভিশন রাখতে হিমশিম খাচ্ছিল। প্রভিশন রাখতে দুই বছর সময় পেয়ে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো ঘুড়ে দাঁড়ানোর চেষ্ঠা করছে। আইসিবিকে একই সুবিধা দেয়ার ফলে রাষ্ট্রায়ত্ব এ প্রতিষ্ঠানটি ঘুড়ে দাঁড়াতে পারে বলে মনে করছে বিএসইসি।
সূত্র জানায়, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোকে অনাদায়ি ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন রাখার সুযোগ ২০১৩ সালে চালু হয়। ওই সময় বিএসইসি থেকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বলা হয়, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো এখন পুনর্মূল্যায়নজনিত ক্ষতির ক্ষেত্রে নিয়মানুযায়ী ১০০ ভাগের পরিবর্তে ২০ শতাংশ হারে প্রভিশন রাখতে পারবে। তবে তা ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর থেকে ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সমান পাঁচটি ত্রৈমাসিক অংশে রাখতে হবে। এই সুযোগ পরবর্তীতে আরো কয়েক ধাপে বাড়ানো হয়।
সূত্র জানায়, প্রভিশন সংরক্ষণে সর্বপ্রথম এ সুযোগ বাড়ানো হয় ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এক বছরের জন্য। এরপর বাজার পরিস্থিতি উন্নতি না হওয়ায় এ মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। কিন্তু ২০১৫ সালে বাজার পরিস্থিতি আরো মন্দাভাব থাকায় মার্চেন্ট ব্যাংকারদের আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রভিশন সংরক্ষণের মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত বাড়ায় বিএসইসি।
এরপর ২০১৭ সালে বাজার পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়। তবে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর পক্ষ থেকে দাবি করা হয় যে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে তা পূরণ করতে আরো সময়ের প্রয়োজন। এ জন্য প্রভিশন সংরক্ষণের মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত বাড়ানোর দাবি করা হয়। বিএসইসি সেই দাবি মেনে নিয়ে এক বছর সময় বাড়ায়। ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগেই আরেক দফা বাড়িয়ে প্রভিশন সংরক্ষণের সুযোগ ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত করা হয়। এরপর আরো এক দফা বাড়িয়ে চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর করা হয়।

About admin

Check Also

অবশেষে উত্থানে সূচক। ১৩ অক্টোবর ২০২০

 শেয়ারবাজার প্রতিবেদক: আগের তিন দিনের পতন কাটিয়ে মঙ্গলবার উত্থানে ফিরেছে সূচক। আজ ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Skip to toolbar