বুধবার , ২৯ জুন ২০২২
uptrend
uptrend

আজ বড় উত্থান না হওয়ার পেছনের কারণ। ২৩ জুন ২০২২

পপুলেশন ডেস্কঃ সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার সূচকের পতন হয়েছে ১৯ পয়েন্ট। পরের দিন সোমবার পতন হয়েছে ৪৯ পয়েন্ট। মঙ্গলবার পতন হয়েছে ৪৫ পয়েন্ট। তিনদিনে সূচক ১১৩ পয়েন্ট কমার পর চতুর্থ কার্যদিবস বুধবার সূচক কিছুটা ঊর্ধ্বমুখি হয়। এদিন সূচকে যোগ হয়েছে ৬ পয়েন্ট। আর আজ সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার সূচকে যোগ হয়েছে আরও ৯ পয়েন্ট।

আজ লেনদেনের শুরুর আধা ঘন্টার মধ্যে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক প্রায় ৫০ পয়েন্ট বেড়ে যায়। তখন ডিএসইএক্স ৬ হাজার ৩৭০ পযেন্ট স্পর্শ করে লেনদেন চলে। তারপর সেল প্রেসার বাড়তে থাকে। বিনিয়োগকারীরা মুনাফা তোলার প্রবণতায় থাকায় বেলা পৌনে দুইটায় বাজার নেগেটিভ জোনে চলে যায়। তারপর আবারও উত্থানে ফেরার প্রানান্তর চেষ্টা। শেষ পর্যন্ত কোন রকমে গ্রীন জোনে থাকে বাজার। দিনের লেনদেন শেষ হয় সূচকের ৯ পয়েন্ট উত্থান প্রবণতা দিয়ে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সপ্তাহের প্রথম তিন দিনে যারা কম দরে শেয়ার কিনেছিলেন, তারা আজ মুনাফা তোলার প্রবণতায় ছিল। যে কারণে বড় উত্থানে যাওয়ার পর বাজার বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারেনি। সেল প্রেসারে সূচক পেছনে টার্ন নেয়। যা ক্রমাগত অব্যাহত থাকে। মুনাফা তোলার কারণে সূচক যেখানে ৫০ পয়েন্ট উঠেছিল, শেষবেলায় সেখানে মাত্র ৯ পয়েন্টে স্থির হয়।

তবে তাঁরা বলছেন, বাজার নিয়ে ভয় পাওয়ার এখন আর কোন কারণ নেই। কারণ শঙ্কার যত অনুষঙ্গ ছিল, বন্যাসহ সবগুলোরই অবসান হয়েছে। এখন বাজার আর পেছনে যাওয়ার কোন কারণ নেই। তাঁদের মতে, সামনের সপ্তাহে বাজারে ভালো কিছু দেখা যেতে পারে।

বৃহস্পতিবারের বাজার চিত্র: আজ ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৯.৮৫ পয়েন্ট বা ০.১৫ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৩২৭.৬৫ পয়েন্টে।

ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১.৪৫ পয়েন্ট বা০.১০ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৪.৬৪ পয়েন্ট বা ০.২০ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে এক হাজার ৩৮২.৯২ পয়েন্টে এবং ২২৯৮.৬০ পয়েন্টে।

ডিএসইতে আজ টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৬৮৩ কোটি ৭৪ লাখ টাকার। যা আগের কার্যদিবস থেকে ১০ কোটি ৬৩ লাখ টাকা কম। আগের কার্যদিবস লেনদেন হয়েছিল ৬৯৪ কোটি ৩৭ লাখ টাকার।

ডিএসইতে ৩৮১ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৪৫ টির বা ৩৮.০৬ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। দর কমেছে ১৬২ টির বা ৪২.৫২ শতাংশের এবং ৭৪ টির বা ১৯.৪২ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

দেশের দ্বিতীয় শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১৭.৭০ পয়েন্ট বা০.০৯ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৬১৯.৯৫ পয়েন্টে।

এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৮৭ টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১২০ টির, কমেছে ১২৬ টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪১ টির দর। আজ সিএসইতে ২৩ কোটি ২৪ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

Check Also

IPO

আরও দুই আইপিও অনুমোদন।

আরও দুই আইপিও অনুমোদন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x
Skip to toolbar